শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন

মসজিদ কমিটি নিয়ে হামলার ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের বিচারের দাবী জানিয়েছেন রনজনা খাতুন।

রিপোর্টারের নাম / ২৬৯ বার
আপডেট সময় রবিবার, ১৯ জুলাই, ২০২০

ভেড়ামারা প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়া ভেড়ামারার সাতবাড়িয়ায় গত ১৯-৬-২০ তারিখে গোরস্থান মসজিদ কমিটি নিয়ে সংঘটিত হামলার সুষ্ঠু তদন্ত এবং প্রকৃত দোষী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে বিচারের দাবী জানিয়েছেন রনজনা খাতুন।

সাতবাড়িয়ার ফজলু মেম্বারের স্ত্রী রনজনা খাতুন বিচারের দাবীতে গত২২-৬-২০ তারিখে ভেড়ামারা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। যা থানায় মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছো মামলা নং ১৫।
রনজনা খাতুন এর লিখিত অভিযোগে রনজনা জানান, গত ১৯-৬-২০ তারিখে সাতবাড়িয়া গোরস্থান ও মসজিদ কমিটি গঠনের জন্য মিটিং ডাকা হয়। উক্ত মিটিং শেষে সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, দীর্ঘদিন ধরে সভাপতি জান মোহাম্মদ, সেক্রেটারি সেলিম মেম্বার ও ক্যাশিয়ার বাবু যে সেবা দিয়েছে তা যথেষ্ট নয়। তাই নতুন কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত নতুন কমিটির সভাপতি মনোনীত হন জামাল উদ্দিন মেম্বার, সেক্রেটারি নিযুক্ত হন আমার ভাসুর রফিকুল ইসলাম এবং ক্যাশিয়ার মনোনীত হন আমার ভাসুরের পুত্র তৌহিদুল ইসলাম লাল্টু। উপরের ৩ জনের নাম ঘোষণার পর কমিটির সাবেক সেক্রেটারি সেলিম মেম্বার সকলের মাঝে চিৎকার করে বলে যে, নতুন কমিটি মানি না, প্রয়োজনে রক্ত দিবো কিন্তু কমিটিতে রফিকুল ইসলামের ঠাই হবে না।এই বলিয়া সেলিম মেম্বার ও বাবু হুংকার দিয়া বলে তোরাকে কোথায় আছিস। তারপরই হাতবোমা, চাইনিজ কুড়াল, রামদা,তরবারি, লাঠি, ফালা ও ইট ইত্যাদি নিয়ে রফিকুলের লোকজনের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। ঐ সময় বিকাল আনুমানিক ৫.৩০ মিনিট বাজে।
তখন আসামীরা যথা- ১. সেলিম মেম্বার, পিতা মৃত আরজ মন্ডল, ২.বাবু, পিতা মৃত জাহিদ মাস্টার, ৩. চাইনু, ৪. হীরু ৫. ফারুক সর্ব পিতা মৃত আবুল হোসেন, ৬. সোহাগ, পিতা সূর্য, ৭. ইয়াসিন মন্ডল পিতা, গাগল মন্ডল, ৮. এমরান ৯. ঈমন উভয় পিতা ইসরায়েল মন্ডল ১০. আশিক পিতা ইয়াসিন, ১১. পাভেল পিতা হাপু মন্ডল, ১২. সোহেল, পিতা সাদ মন্ডল, ১৩. নজরুল ইসলাম নজু, পিতা মৃত জাহিদ মাস্টার, ১৪. জুবাইল, পিতা,জুনাব মন্ডল ১৫. রাসেল, পিতা ছামাদুল মন্ডল ১৬. রোকন, পিতা,রাস্তুল মন্ডল, ১৭. হারুন,পিতা,মৃত রমান মন্ডল, ১৮.ছালাম, পিতা, ছলিম মন্ডল ১৯. আলিফ,পিতা, দেল মন্ডল ২০. হানিফ পিতা,মৃত খাকচার সহ অজ্ঞাত নামা ৫৫/৬০ জন বেআইনি জনতায় দলবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্র সজ্জে সজ্জিত হয়ে আসামিগণ গোরস্থান মন্ডলপাড়া মসজিদ হইতে উত্তর দক্ষিণে প্রসারিত রাস্তা হইতে আমার স্বামী ফজলু মেম্বার, ভাসুরপুত্র আতিকুর রহমান, মেজ ভাসুরের ছেলে রিপন ও পাড়ার ছেলে আবু সাঈনকে তাড়া করিলে তাহারা আত্মরক্ষার জন্য দৌড়াইয়া সোনালী বিড়ি ফ্যাক্টরীর সামনে পাকা রাস্তার উপর পৌছাইলে তাহারা আমার স্বামী ফজলু মেম্বার, আতিকুর, রিপনদের প্রানে শেষ করিবার জন্য ঘিরিয়া ধরে, আসামী সেলিম মেম্বার তার হাতে থাকা কুড়াল দ্বারা আমার স্বামী কে হত্যার উদ্দেশ্য মাথার পিছনে পর পর ২ টা আঘাত করে। আসামী বাবু তার হাতে থাকা তরবারি দ্বারা মাথার খুলির নিচে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে,,,,( এজাহার থেকে সংক্ষিপ্ত)। ভেড়ামারা থানার মামলা নং ১৫ তারিখ ২২-৬-২০২০।
অপরদিকে যাদের উপর হামলা হয়েছে তাদেরকেই অন্য একটি মামলায় আসামি করা হয়েছে বলে রনজনা খাতুনের দাবি। রনজনা খাতুন এই প্রতিবেদককে আরো জানান, নিরপরাধ মানুষগুলো আজ আসামি হয়েছে। আমার স্বামী মার খেয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে তারপর ও আমার স্বামীকেও আসামি করাই আজ অসুস্থ অবস্থায় ও তাকে জেলে কাটাতে হচ্ছে। অপরদিকে তৌহিদুল ইসলাম লাল্টু আওয়ামীলীগের ত্যাগী কর্মী ছিল। তাকে ও মিথ্যা অপবাদে আসামি করা হয়েছে, দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আশাকরি পুলিশ প্রশাসন সঠিক তদন্তে সত্য উদঘাটন করবে এবং নিরপরাধ মানুষগুলো মুক্তি পাবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানান, তৌহিদুল ইসলাম লাল্টু ধরমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ছিলেন এবং দলের জন্য তার ত্যাগের অন্ত নেই। তারপর ও দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
তিনিও উক্ত ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং প্রকৃত দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিস্তারিত
Theme Created By ThemesDealer.Com
DMCA.com Protection Status